আওয়ামী লীগ সরকারের সফলতার কথা জানালেন প্রধানমন্ত্রী

0 70

|| বঙ্গকথন প্রতিবেদন ||

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আওয়ামী লীগ সরকারের ৩ বছর পূর্তি ও চতুর্থ বছরে পর্দাপণ উপলক্ষ্যে জাতির উদ্দেশ্যে ভাষণ দেন। শুক্রবার সন্ধ্যা ৭টায় প্রধানমন্ত্রীর এই ভাষণ বাংলাদেশ টেলিভিশন, বাংলাদেশ বেতার ও বেসরকারি টিভি চ্যানেলগুলো ও রেডিও স্টেশনগুলোতে সরাসরি সম্প্রচার করা হয়।

আওয়ামী লীগ ২০০৯ সালে সরকার গঠনের পর থেকে টানা তিনবারই ক্ষমতায় আছে সফলভাবে। ২০১৮ সালের ৩০ ডিসেম্বর নির্বাচনে বিজয়ী হওয়ার পর ২০১৯ সালের ৭ জানুয়ারি শেখ হাসিনা চতুর্থ বারের মতো প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ গ্রহণ করেন। আজ শুক্রবার শপথ গ্রহণের তৃতীয় বছর পূর্ণ হলো। প্রতি বছর সরকার গঠনের বার্ষিকীতে জাতির উদ্দশ্যে ভাষণ দেন শেখ হাসিনা। এবারও ব্যতিক্রম হয়নি। তিনি তার ভাষণে ২০০৯ সাল থেকে সরকার গঠনের পর দেশের উন্নয়নে কী কী কাজ করেছেন তা তুলে ধরেন।

শেখ হাসিনা তার সরকারের বেশ কয়েকটি সাফল্যের কথা তুলে ধরেন। তার মধ্যে থেকে সংক্ষিপ্ত আকারে কিছু অংশ তুলে ধরা হলো-

বিদ্যুৎ উৎপাদন বৃদ্ধি

প্রধানমন্ত্রী জানান, ২০০৯ সালে তার নেতৃত্বে সরকারের দায়িত্ব গ্রহণের আগে বিদ্যুৎ উৎপাদনের সক্ষমতা ছিল ৪২০০ মেগাওয়াট। বর্তমানে দৈনিক বিদ্যুৎ উৎপাদন সক্ষমতা দাঁড়িয়েছে ২৫ হাজার ২৩৫ মেগাওয়াটে।পায়রাতে ইতোমধ্যে ১ হাজার ৩২০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপন হয়েছে। রামপাল, পায়রা, বাঁশখালী, মহেষখালী এবং মাতারবাড়িতে আরও মোট ৭ হাজার ৮০০ মেগাওয়াটের বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণের কাজ এগিয়ে চলার কথাও জানান তিনি।

খাদ্যে স্বয়ং-সম্পূর্ণতা

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আজ খাদ্য উৎপাদনে বাংলাদেশ স্বয়ং-সম্পূর্ণ। বর্তমানে দানাদার খাদ্যশস্য উৎপাদনের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ৪ কোটি ৫৫ লাখ মেট্রিক টন। বাংলাদেশ বিশ্বে ধান, সবজি ও পেঁয়াজ উৎপাদনে ৩র্থ স্থানে উন্নীত হয়েছে। এছাড়া মাছ-মাংস, ডিম, শাকসবজি উৎপাদনেও বাংলাদেশ স্বয়ং-সম্পূর্ণ। অভ্যন্তরীণ মুক্ত জলাশয়ে মাছ উৎপাদন বৃদ্ধির হারে বাংলাদেশ দ্বিতীয় স্থানে এবং ইলিশ উৎপাদনকারী ১১ দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান প্রথম।

গ্রামোন্নয়নের পরিকল্পনা গ্রহণ

শেখ হাসিনা বলেন, আমরাই প্রথম গ্রামোন্নয়নকে উন্নয়নের মূলধারায় সম্পৃক্ত করি। ২০০৯ থেকে ২০২১ পর্যন্ত গ্রামে ৬৬ হাজার ৭৫৫ কিলোমিটার সড়ক উন্নয়ন, ৩ লাখ ৯৪ হাজার ব্রিজ-কার্লভার্ট, ১ হাজার ৭৬৭টি ইউনিয়ন পরিষদ কমপ্লেক্স ভবন, ১ হাজার ২৫টি সাইক্লোন সেন্টার এবং ৩২৬টি উপজেলা কমপ্লেক্স ভবন নির্মাণ ও সম্প্রসারণ করা হয়েছে।

রেলপথ উন্নিতকরণ

তিনি জানান, বাংলাদেশ রেলওয়েকে যুগপোযোগী এবং আধুনিক গণপরিবহন হিসেবে গড়ে তোলার লক্ষ্যে বর্তমানে ১৩ হাজার ৩৭১ কোটি ৪৫ লাখ টাকা ব্যয়ে ৩৭টি প্রকল্পের কাজ চলছে। এছাড়া তার সরকার মেট্রোরেলের মত মেগা প্রকল্প হাতে নিয়েছে এবং ঢাকার চারদিকে সার্কুলার রেল লাইন স্থাপনের সমীক্ষার কাজ করছে।

স্বাস্থ্যখাতে ইতিবাচক পরিবর্তন

সরকারি-বেসরকারি মিলিয়ে স্বাস্থ্যখাতে বাংলাদেশের ব্যাপক ইতিবাচক পরিবর্তন হয়েছে বলেও মনে করেন শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, সারা দেশে সাড়ে ১৮ হাজার কমিউনিটি ক্লিনিক এবং ইউনিয়ন স্বাস্থ্যকেন্দ্র হতে গ্রামীণ নারী-শিশুসহ সাধারণ মানুষের স্বাস্থ্যসেবা দেয়া হচ্ছে। সেই সঙ্গে বিনামূল্যে ৩০ ধরনের ওষুধ দেয়া হয়। মানুষের গড় আয়ু ২০১৯-২০ বছরে ৭২.৮ বছরে উন্নীত হওয়ার পেছনে স্বাস্থ্যসেবার সম্প্রসারণ এবং গুণগত মানোন্নয়নের কথাও তুলে ধরেন তিনি।

শিক্ষাখাতে উন্নয়ন

করোনার প্রভাবের মধ্যেও অনলাইনে শিক্ষা কার্যক্রম এগিয়ে নেয়া, বিনা মূল্যে বই বিতরণ, প্রায় ২ কোটি ৩০ লাখ শিক্ষার্থীর মধ্যে ২ হাজার ৯৫৮ কোটি টাকার বৃত্তি-উপবৃত্তি বিতরণের কথাও তুলে ধরেন তিনি।

ইন্টারনেট সেবার বিকাশের কারণে অন-লাইনে ব্যবসা-বাণিজ্য এবং লেনদেন সুবিধা গ্রহণ করে সাধারণ মানুষ স্বাভাবিক জীবনযাত্রা অব্যাহত রাখতে সমর্থ হয়েছে বলেও উল্লেখ করেন শেখ হাসিনা। বলেন, ‘আমাদের প্রায় ৬ লাখ তরুণ-তরুণী আজ ফ্রিল্যান্সিং-এর মাধ্যমে নিজেদের কর্মসংস্থানের পাশাপাশি বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন করছে।

এছাড়া প্রধানমন্ত্রী আরো বলেন, চতুর্থ শিল্পবিপ্লব একদিকে যেমন চ্যালেঞ্জ তৈরি করবে, তেমনি খুলে দেবে সম্ভাবনার দ্বার। আমাদের চতুর্থ শিল্পবিপ্লবের উপযোগী সুদক্ষ মানবসম্পদ গড়ে তুলতে হবে। নিজস্ব স্যাটেলাইট বঙ্গবন্ধু-১ উদ্ভাবন, ডিজিটাল প্রযুক্তির চতুর্থ শিল্পবিপ্লবের যুগে প্রবেশের জন্য সরকারের প্রস্তুতির কথাও বলেন তিনি।

সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনী কর্মসূচির আওতায় উপকারভোগীর সংখ্যা প্রায় ১ কোটি ২ লাখ ৮৭ হাজারে উন্নীত, মুক্তিযোদ্ধা ভাতা ১২ হাজার টাকা থেকে ২০ হাজার টাকা করা, ১ লাখ ৪৮ হাজার ৩৯৭টি ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে ২ শতক খাস জমি বরাদ্দ দিয়ে বাড়ি করে দেয়া, কক্সবাজারের খুরুশকুলে জলবায়ু উদ্বাস্তদের জন্য ৪ হাজার ৪৪৮টি ফ্লাট নির্মাণ, ঢাকায় বস্তিবাসীদের জন্য মিরপুরে ১০ হাজার ফ্লাট নির্মাণের বিষয়টিও উঠে আসে সরকার প্রধানের ভাষণে।

নারীদের দক্ষ মানবসম্পদ হিসেবে গড়ে তোলার জন্য প্রতিটি উপজেলায় প্রশিক্ষণ কেন্দ্র গড়ে তোলা, নারী উদ্যোক্তাদের জন্য স্বল্প সুদে বিশেষ ঋণের ব্যবস্থা করার কথাও বলেন তিনি।

জেটি//এফএস

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More