হাতির পিঠে চললেন বর…

0 91

||বঙ্গকথন প্রতিবেদক||

বুধবার রাত ৯টা! হঠাৎ করেই বাদ্য-বাজনাসমেত হাতির পিঠে চেপে বগুড়া শহরের ব্যস্ত সড়ক ধরে বিয়ে করতে চলেছেন এক বর। সঙ্গে বরযাত্রী না থাকায় প্রথমে নিশ্চিত হওয়া যাচ্ছিলো না; পরে বর নিজেই নিশ্চিত করলেন বাবা আর হবু শ্বশুরের শখ মেটাতেই এমন আয়োজন।

শহরের কাজী নজরুল ইসলাম সড়ক ধরে চেলোপাড়া এলাকার বাসিন্দা জর্জ দাস চলেছেন কাটনারপাড়া এলাকার দিকে। সেখানকার এক কমিউনিটি সেন্টারে আয়োজন করা হয়েছে, বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে কর্মরত জর্জ দাস আর তিথি রয়ের। পথে যেতে যেতে জর্জ জানালেন, দুই পরিবারের মাঝে বিয়ের আয়োজন নিয়ে আলাপচারিতা চলছিলো বেশ কিছুদিন ধরেই। একপর্যায়ে বরের বাবা এবং হবু শ্বশুর ইচ্ছে প্রকাশ করেন-বিয়েতে বর আসবে হাতির পিঠে চেপে। দুজনে মিলে ইচ্ছেপূরণ করতে মহাস্থান এলাকার একটি সার্কাস দল থেকে নিজেরাই ভাড়া করে আনেন হাতি।

শহরের প্রধান সড়ক ঘুরে হাতি যখন বরসহ পৌঁছালো কমিউনিটি সেন্টারের সামনে; তখন বিয়েবাড়ির আনন্দে যেনো নতুন মাত্রা যোগ হলো! বিয়েবাড়ির গেটে বর আর হাতি দুটোই তখন সমানতালে সবার আগ্রহের কেন্দ্রে। বরকে স্বাগত জানানোর আনুষ্ঠানিকতা শুরুর আগে আমন্ত্রিতদের খানিকটা সময় মাতিয়ে রাখলো হাতি। সড়কের এদিক ওদিক ছুটে চলা আর নানান কসরত দেখিয়ে ভিন্নমাত্রায় স্মরণীয় করে রাখলো এই নতুন দম্পতির বিয়ের দিনটিকে। চোখের সামনে হাতির পিঠে চেপে বসা বর পেয়ে ভিন্নরকম সেলফি সংগ্রহেও মেতে উঠেছিলেন বিয়েতে আমন্ত্রিতরা। বৃহস্পতিবার বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা শেষে নববধু নিয়ে ফেরার পথেও শরীরজুড়ে আল্পনা আঁকা এমন হাতি থাকবে কী না, সেটি অবশ্য এখনই নিশ্চিত করতে চান নি বর জর্জ দাস।

মহাস্থানের দি বুলবুল সার্কাসের সদস্য এনামুল হক জানান, করোনার কারণে দীর্ঘদিন কোনো মেলা না থাকায় সার্কাসের হাতিগুলো এখন প্রায় বসেই থাকে। অনেকে শখ করে হাতিতে চেপে বিয়ে করতে যেতে চাইলে, তারা ভাড়া দেন। দূরত্বভেদে ১০ থেকে ১৫ হাজার টাকা নেয়া হয় হাতি ভাড়া নেয়ার জন্য।

এমএইচ//

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More