সিনেমার শুটিং এবার মহাকাশে!

0 37

||সংস্কৃতির মঞ্চ প্রতিবেদন||

মহাশূন্য ছোঁয়ার প্রতিযোগিতায় ১৯৬১ সালে এগিয়ে যায় তৎকালীন সোভিয়েত ইউনিয়ন। সোভিয়েত ইউনিয়নের আগেই চাঁদে মানুষ পাঠিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। ১৯৬৯ সালে প্রথম চাঁদে পা রাখেন নীল আর্মস্ট্রং। মহাকাশে নিজেদের স্টেশন বানিয়ে প্রতিযোগিতায় এগিয়ে গেছে চীনও। এবার এই প্রতিযোগিতায় নতুন এক মাইলফলক যুক্ত করেছে রাশিয়া। সিনেমার দৃশ্য ধারণ করতে প্রথমবারের মত আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশনের উদ্দেশ্যে মঙ্গলবার পাড়ি জমান রাশিয়ার এক অভিনেত্রী ও একজন চলচ্চিত্র পরিচালক।

সিনেমাটির নাম ’দ্য চ্যালেঞ্জ’। আর বাস্তবেও চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হতে হবে শিপেনকো ও পেরেশিল্ডকে। সিনেমায় পেরসিল্ড একজন চিকিৎসকের ভূমিকায় অভিনয় করবেন; একজন নভোচারীর প্রাণ রক্ষার জন্য যাকে মহাকাশ স্টেশনে যেতে বলা হয়। মহাকাশচারী অন্যদেরও সিনেমায় দেখা যাবে। মহাকাশে পেরেসিল্ড এবং শিপেঙ্কোর ১২ দিনের এই অভিযাত্রায় তাদের সঙ্গে আছেন দুজন পেশাদার নভোচারী।

কাজাখস্তানের কাছে বাইকনুর নভোযান উড্ডয়ন কেন্দ্র থেকে তাদের নিয়ে রাশিয়ার সয়ুজ এমএস-১৯ মহাকাশযানটি পৃথিবীর কক্ষপথের উদ্দেশে রওনা দেয়। ছয় ফুট ২ ইঞ্চি উচ্চতার ক্লিম শিপেঙ্কোর জন্য ছোট একটি ক্যাপসুলে করে এই মহাকাশ যাত্রা বেশ চ্যালেঞ্জিং। উড্ডয়নের ক্ষণ গণনা থেকে শুরু করে প্রতিটি মুহূর্তের সর্বশেষ খবর তুলে ধরে রাশিয়ার রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যম চ্যানেল ওয়ান।

রয়টার্সের প্রতিবেদনে বলা হয়, এই অভিযানের মধ্য দিয়ে মহাকাশে চলচ্চিত্র নির্মাণের প্রতিযোগিতায় যুক্তরাষ্ট্রকে ফেলে এগিয়ে গেল রাশিয়া। বিজ্ঞানভিত্তিক সাময়িকী ‘স্পেস’ জানিয়েছে, সব প্রস্তুতি নিয়েই তারা মহাকাশে পাড়ি জমিয়েছেন। এর মধ্য দিয়ে রাশিয়া যে মাইলফলকে পৌঁছে গেছে, সেটি তাদের পরবর্তী পদক্ষেপেও বজায় থাকবে।

এসএ//এমএইচ

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More