শিশুদের করোনা টিকা দিতে শুরু করেছে বহু দেশ

0 35

||বিদেশ-বিভূঁই প্রতিবেদন||

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার অনুমোদন না পেলেও বিশ্বের বেশ কিছু দেশে চলছে শিশুদের টিকা প্রদান। আর এই বিষয়টিতে দেখা মিলছে একেক দেশে একেক নীতি ও কৌশল। শিশুদের টিকা দেয়ার ক্ষেত্রে কোন দেশ কোন নীতি এবং কৌশল অবলম্বন করছে তা তুলে ধরা হয়েছে বিবিসির এক প্রতিবেদনে।

গত মে মাসে ইউরোপিয়ান মেডিসিন্স এজেন্সি (ইএমএ) ১২ থেকে ১৫ বছর বয়সীদের ফাইজারের টিকা দেওয়ার অনুমোদন দিয়েছে। ডেনমার্ক ১২ থেকে ১৫ বছর বয়সী এবং স্পেন ১২ থেকে ১৯ বছর বয়সীসহ তাদের প্রায় সব শিশুকে টিকার অন্তত একটি করে ডোজ দিয়েছে। ফ্রান্সে ১২ থেকে ১৭ বছর বয়সীদের ৬৬ শতাংশকে টিকার একটি ডোজ দেওয়া হয়েছে দেশটিতে। সুইডেনে কেবল ফুসফুসের রোগ, তীব্র অ্যাজমার জটিলতা এবং উচ্চ ঝুঁকির অন্যান্য স্বাস্থ্য সমস্যা থাকলেই কেবল ১২ থেকে ১৫ বছর বয়সীদের টিকা দেওয়া হচ্ছে।

ইউরোপের বাইরের দেশ নরওয়ে সম্প্রতি বয়সসীমা বাড়িয়ে ১২ থকে ১৫ বছরের শিশুদের টিকার প্রথম ডোজ দিচ্ছে। গত মে মাসে যুক্তরাষ্ট্র এবং কানাডায় প্রথম ১২ বছরের বেশি বয়সী শিশুদের ফাইজারের টিকা দেওয়ার অনুমোদন দেওয়া হয়। গত জুনে ৩ থেকে ১৭ বছর বয়সীদের জন্য ওষুধ কোম্পানি সিনোভ্যাকের টিকার অনুমোদন দিয়েছে চীন। তারাই প্রথম এত কম বয়সী শিশুদের জন্য টিকার অনুমোদন দিয়েছে। এশিয়া, আফ্রিকা এবং দক্ষিণ আমেরিকার দেশগুলোতে ব্যাপকভাবে চীনা কোম্পানি সিনোভ্যাকের টিকা দেওয়া হচ্ছে। চিলিতে ইতোমধ্যে ৬ বছর বয়সী শিশুদের জন্য সিনোভ্যাকের টিকার অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। সম্প্রতি দক্ষিণ আফ্রিকায় ৬ মাস থেকে ১৭ বছর বয়সীদের ওপর টিকার পরীক্ষা চালাচ্ছে কোম্পানিটি। গত আগস্টে স্থানীয় কোম্পানি ‘জাইডাস ক্যাডিলা’র তৈরি নতুন একটি টিকা ১২ বছর বা তার বেশি বয়সীদের জন্য জরুরি ব্যবহারের অনুমতি দিয়েছে ভারতের ওষুধ নিয়ন্ত্রক সংস্থা। ভারতে এটাই শিশুদের টিকার প্রথম অনুমোদন। ওষুধ কোম্পানি ফাইজারের পক্ষ থেকেও কম বয়সী শিক্ষার্থীদের ওপর টিকার পরীক্ষা চালানো হচ্ছে। আগামী সেপ্টেম্বরের মধ্যে ৫ থেকে ১১ বছর বয়সীদের ওপর টিকা পরীক্ষার ফলাফল তথ্যসহ পাওয়ার আশা করছে কোম্পানিটি। ৬ মাস থেকে ৪ বছর বয়সীদের ওপর টিকা পরীক্ষার ফল এ বছরের শেষ নাগাদ পাওয়া যেতে পারে।

এসএ//এমএইচ

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More