বউ ফেরত চেয়ে শ্বশুরবাড়ির সামনে প্ল্যাকার্ড পিঠে হরিদাস!

0 11

||বিদেশ-বিভূঁই প্রতিবেদন||

স্ত্রী-সন্তানকে ফিরে পাবার দাবিতে শ্বশুরবাড়ির সামনে ধর্নায় বসেছেন এক যুবক। পিঠে লাগিয়েছেন ‘আমার বউ ফেরত চাই’ লেখা কাগজও। মঙ্গলবার (২৩ নভেম্বর) পশ্চিমবঙ্গের মালবাজার এলাকায় এই ঘটনা ঘটে।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম বলছে, হাতে স্ত্রী-সন্তানের ছবি নিয়ে মঙ্গলবার দুপুরে আচমকাই শ্বশুরবাড়ির সামনে বসে পড়েন হরিদাস মণ্ডল নামে ওই যুবক। বিষয়টি ঘিরে এলাকায় চাঞ্চল সৃষ্টি হয়েছে। হরিদাসকে দেখতে সেখানে ভিড় জমে যায় স্থানীয়দের। হরিদাস মণ্ডল পেশায় একজন রাজমিস্ত্রী। তিনি জানান, চার বছর আগে কাঠামবাড়ি এলাকার বাসিন্দা জ্যোৎস্না মণ্ডলের সঙ্গে বিয়ে হয় তার। সংসারে তাদের দেড় বছরের একটি মেয়ে রয়েছে।

হরিদাসের দাবি, প্রথমদিকে সবকিছুই ঠিক ছিলো। কিন্তু বছরখানেক ধরে তাদের সংসারে অশান্তি চলছে। যার জন্য শ্বশুরবাড়ির লোকজনকে দায়ী করেছেন তিনি। তার অভিযোগ, সম্প্রতি মেয়েকে নিয়ে বাবার বাড়ি যাবার পর শ্বশুরবাড়ির চাপে তার স্ত্রী আর ফিরতে চাইছেন না। স্ত্রী-সন্তানকে নিতে গেলেও প্রতিবারই খালি হাতে ফিরতে হয়েছে। তাই বাধ্য হয়েই ধর্না ধরেছেন। এমনকি ‘এর জন্য মরতেও রাজি’ বলে জানিয়েছেন হরিদাস।

তবে যাকে ঘিরে এত আয়োজন, হরিদাসের স্ত্রী জ্যোৎস্না বলছেন ভিন্ন কথা। তিনি বলেন, ‘হরিদাস মদ পান করে বাড়িতে এসে আমার ওপর শারীরিক অত্যাচার করায় আমি বাপের বাড়ি চলে এসেছি। তাই সিদ্ধান্ত নিয়েছি, আমি তার সঙ্গে আর থাকবো না। এতে আমার বাবা-মায়ের কোনো দোষ নেই।’ সেই সাথে মেয়ের ভরপোষণের দাবিও করেন জ্যোৎস্না।

জানা গেছে, প্রচণ্ড শীতের মধ্যে মধ্যরাত পর্যন্ত বসেছিলেন হরিদাস। এরপর পুলিশ এবং স্থানীয় পঞ্চায়েত সদস্যের আশ্বাসে গভীর রাতে উঠে যান তিনি।

এসএ//এমএইচ

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More