পুজিঁবাজারে নিস্ক্রিয় বিনিয়োগকারীরা সক্রিয় হতে শুরু করেছে

0 65

শেয়ারবাজারের যেসব বিনিয়োগকারী শেয়ার বিক্রি করে নিষ্ক্রিয় হয়ে গিয়েছিলেন, তাঁরা আবারও সক্রিয় হতে শুরু করেছেন। পাশাপাশি বাজারে নতুন করে বিনিয়োগ বা অর্থ ঢুকছে। এ অর্থ সবচেয়ে বেশি আসছে বড় বড় ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে। এ কারণে বাজারে লেনদেনেও আবার নতুন করে গতি সঞ্চার হয়েছে।

শীর্ষ এসব ব্রোকারেজ হাউসের কর্মকর্তারা জানান, গত কয়েক দিনে বিশেষ করে ১৪ এপ্রিলের পর হঠাৎ করে নিষ্ক্রিয় বিনিয়োগকারীরা সক্রিয় হতে শুরু করেছেন। যাদের বড় অংশ গত কয়েক মাসে শেয়ার বিক্রি করে মুনাফা তুলে নিয়ে চুপচাপ বসে ছিলেন।তাদের মধ্য থেকে একটি অংশ সক্রিয় হওয়ার পাশাপাশি নতুন করে বাজারে অর্থলগ্নি করছে।

নতুন করে যাঁরা বাজারে বিনিয়োগ নিয়ে আসছেন, তাঁরা কোন শ্রেণির বিনিয়োগকারী, জানতে চাইলে ওই নির্বাহী বলেন, এঁদের মধ্যে বড় একটি অংশ প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ী ও শিল্পোদ্যোক্তা।

বাজারে যে নতুন বিনিয়োগ আসছে তার প্রমাণ মেলে লেনদেনের চিত্র দেখে। গতকাল দেশের প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) প্রায় ১ হাজার ৩০০ কোটি টাকার লেনদেন হয়েছে। এর মধ্যে অবশ্য ৪০০ কোটি টাকা ব্লক মার্কেটে লেনদেন হয়। সাধারণত ব্লক মার্কেটের লেনদেন নির্দিষ্ট একটি দিনের লেনদেন। ওই লেনদেনকে তাই নিয়মিত লেনদেন হিসেবে বিবেচনা করা হয় না। ব্লক মার্কেটের ৪০০ কোটি টাকার লেনদেন বাদ দিলেও গতকাল মূল বাজারে লেনদেনের পরিমাণ ছিল প্রায় ৯০০ কোটি টাকা।

শেয়ারবাজারে বর্তমানে লেনদেন হচ্ছে মাত্র আড়াই ঘণ্টা। এ আড়াই ঘণ্টায় লেনদেন ৯০০ কোটি টাকা ছাড়িয়ে যাওয়াকে বাজারের চাঙাভাব বলেই অভিহিত করছেন বাজারসংশ্লিষ্টরা। তাঁরা বলছেন, আগে ৪ থেকে সাড়ে ৪ ঘণ্টার লেনদেনের সময়কালে শুধু বাজার চাঙা থাকলে এ পরিমাণ লেনদেন হতো।

এদিকে বাজারের এ চাঙাভাব ও লেনদেন বৃদ্ধি বাজারসংশ্লিষ্টদের আনন্দিত করলেও সাধারণ বিনিয়োগকারীদের জন্য শঙ্কা বা ভয়ের কারণও রয়েছে বলে তাঁরা মনে করেন। কারণ, বাজারের এ চাঙাভাবের সুযোগে কারসাজিকারকেরা কিছু কিছু খাত ও কোম্পানির শেয়ারের অস্বাভাবিক মূল্যবৃদ্ধি

ঘটাচ্ছেন।

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More