পালিয়ে বেড়াচ্ছেন আফগানিস্তানের দুশোর বেশি নারী আইনজীবী

0 58

||বিদেশ-বিভূঁই প্রতিবেদন||

আফগানিস্তানের একজন প্রভাবশালী আইনজীবী ছিলেন ফারিশতা (ছদ্মনাম)। যিনি দায়িত্বে থাকা অবস্থায় শাস্তির মুখোমুখি হয়েছে দেশটির অসংখ্য সন্ত্রাসী, সহিংস তালেবান সদস্য, দুর্নীতিগ্রস্ত আমলা এবং নারী-শিশু নির্যাতনকারী। গত ১৫ আগস্ট তালেবানের কাবুল দখলের পর থেকেই জীবন বাঁচাতে তিনি আছেন আত্মগোপনে। ব্রিটিশ গণমাধ্যম বিবিসি বলছে, ফারিশতার মতো এমন করে আত্মগোপনে আছেন অন্তত ২৩০ আফগান নারী আইনজীবী।

ফারিশতা (২৭) কোনোমতে তালেবানদের থেকে লুকিয়ে এখন দিন কাটাচ্ছেন । অপরাধীর মত পালিয়ে বেড়াচ্ছেন একসময়ের আইনজীবি। ২০০১ এ তালেবান পরাজিত হওয়ার পর পেশাগত সাফল্য অর্জন করা অল্প সংখ্যক আফগান নারীর মধ্যে ফারিশতা ছিলেন অন্যতম। ৫ বছর আগে দেশটির সাবেক সরকারের শাসনামলে ফারিশতা আফগানিস্তানের অ্যাটর্নি জেনারেলের অফিসে বিচারক হিসেবে নিযুক্ত হন। তাকে ধর্ষণসহ নারী-শিশু নির্যাতনকারীদের বিচারক হিসেবে নিযুক্ত করা হয়েছিলো। অসংখ্য তালেবান সন্ত্রাসী, ধর্ষক ও নারী নির্যাতনকারীকে শাস্তির আওতায় এনেছিলেন ফারিশতা।

আগস্টে তালেবান ক্ষমতা দখল করলে দৃশ্যপট বদলে যায়। তালেবান ক্ষমতায় আসার সাথে সাথেই মুক্তি পেয়েছে অসংখ্য সাজাপ্রাপ্ত আসামী, যাদের প্রধান টার্গেট এখন ফারিশতা। আফগানিস্তানে ফারিশতার মতো জীবন বাঁচাতে এখন বিভিন্ন জায়গায় পালিয়ে বেড়াচ্ছেন অন্তত ২৩০ জন্য নারী বিচারক, যারা বিগত সরকারের আমলে নিযুক্ত হয়েছিলেন।

এসব আইনজীবীর অভিযোগ, তাদের বাড়িতে জোরপূর্বক সার্চ করেছে তালেবান। এমনকি তাদের আত্মীয়দেরও দেয়া হয়েছে মেরে ফেলার হুমকি। তাদের ধারণা নারী বলেই তাদের প্রতি বেশি উগ্র আচরণ করছে তালেবান।

ফারিশতা সাংবাদিকদের বলেন, মোহাম্মদ গুল নামক এক তালেবান সদস্যকে আমি কারাদণ্ড দিয়েছিলাম ধর্ষণের অভিযোগে। তালেবান তাকে কারামুক্ত করার পরের দিনই সে আমাকে ফোন করে বলেছে যে, তুমি কোথাও লুকোতে পারবে না, আমি অবশ্যই তোমাকে খুঁজে বের করে প্রতিশোধ নেবো।‘ এরপর থেকেই পালিয়ে বেড়াচ্ছেন ফারিশতা। ইতোমধ্যে জমানো অর্থ প্রায় শেষ হয়ে এসেছে তার। ফলে পালিয়ে লুকিয়ে থাকা এখন আরও বেশি কঠিন হয়ে উঠেছে ফারিশতার জন্য।

এমএইচ//

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More