নির্বাচন কমিশন এবং আইন মন্ত্রণালয়ের কোন প্রয়োজন নেই, তাই বন্ধ করা হলো’- তালিবান

0 64

।। বিদেশ বিভূঁই প্রতিবেদন ।।

গোড়ার দিকে নিজেদের শুধরে নেবার প্রতিশ্রুতি দিলেও সময়ের সাথে স্বমহিমায় ফিরছে তালিবান । প্রায় দুই দশকের গণতান্ত্রিক শাসন ছিনিয়ে নিয়ে ২১ এর আগস্টে আফগানিস্তানে ক্ষমতায় ফেরে তালিবান । যুগের পরিবর্তনের সাথে মানিয়ে নিতে নিজেদের চিন্তা চেতনারো পরিবর্তন ঘটেছে এমন দাবি ছিলো তাদের শুরু থেকেই । কিন্তু, ঘুরেফিরে যেন সেইসব আদর্শেই তারা ফিরছে যা কিনা ‘জঙ্গিবাদ’র ইঙ্গিত দেয় বিশ্ব কে ।

যার সূত্রপাত হয় আফগানিস্তানের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গুলোতে নারী-পুরুষ শিক্ষার্থীদের আলাদা বসার নির্দেশনার মাধ্যমে ।আর সবশেষ তারা আফগানে গণতন্ত্রের অবশিষ্ট চিহ্ন ‘নির্বাচন কমিশন’ – কে করলো বন্ধ ঘোষনা । শুধু তাই নয় দেশটি থেকে তুলে দেয়া হলো আইন বিষয়ক মন্ত্রণালয়ও । না কোন বিশেষ কারন বা পরিস্থিতি নয়, ক্ষমতাসীন তালিবান মনে করছে তাদের দেশে নির্বাচন কমিশন আইন মন্ত্রণালয়ের কোন প্রয়োজন নেই । সেকারনে, এই দুই দপ্তর সংক্রান্ত কোন ইউনিট আর থাকছে না আফগানে ।
তবে, এ সিদ্ধান্ত চলমান সময়ের দাবি করে তালিবানের মুখপাত্র বিলাল করিমি গণমাধ্যমে জানান, পরবর্তীতে যদি কখনো প্রয়োজন হয় তখন এই দপ্তর গুলোকে আবারো কাজ করার অনুমতি দেয়া হবে । তবে, বর্তমানে এসব দপ্তরের কোন প্রয়োজন নেই ।
২০০৬ সালে আফগানিস্তানে গঠন করা হয় ইন্ডিপেনডেন্ট ইলেকশন কমিশন । তারপর থেকে এই কমিশনই সেদেশের নাগরিকদের ভোটের মাধ্যমে সকল নির্বাচন সম্পন্ন করে আসছে ।

৯/১১’র হামলার পর তালিবানকে কাবুল থেকে উৎখাত করতে মার্কিন ফৗজের নেতৃত্বে মিত্রবাহিনী হানা দেয় আফগানিস্তানে । সেই থেকে প্রায় ২০ বছরের লড়াই শেষে তালিবানের আফগান দখলের মখে কাবুল ছাড়ে মার্কিন সেনারা ।

//আরজে

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More