ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাতে মামলায় বিতর্কিত লেখিকা তসলিমার নামে অভিযোগপত্র

0 53

||বঙ্গকথন প্রতিবেদন||

বিতর্কিত লেখিকা তসলিমা নাসরিনের লেখা ‘ধর্ষকের কাছে নারীর কোন ধর্ম নেই’ এক নিবন্ধে ইসলাম ধর্মের নবী-রাসুলদের অবমাননা করে বর্ণনা করায় ২০১৮ সালের ১৯ এপ্রিল ঢাকায় মামলা হয়। মাসিক পত্রিকা আল বাইয়েনাত সম্পাদক আল্লামা মুহম্মদ মাহবুব আলম বাদী হয়ে ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত হানায় তথ্য ও প্রযুক্তি আইনে তসলিমা নাসরিনসহ ৩ জনের বিরুদ্ধে মামলাটি করেন।

সম্প্রতি সেই মামলার অভিযোগপত্র দাখিল করেছে পুলিশের কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম (সিটিটিসি) ইউনিট। ৩ অক্টোবর ঢাকার চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট (সিএমএম) আদালতে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা পরিদর্শক নাজমুল নিশাত এই অভিযোগপত্র দাখিল করেন। অভিযোগপত্রে থাকা অন্য দুই আসামি হলেন ‘উইমেন চ্যাপ্টার’ ওয়েবসাইটের সম্পাদক সুপ্রীতি ধর লিপা ও ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক সুচিস্মিতা সিমন্তি। তবে নাম ঠিকানা সংগ্রহ করতে না পারায় উইমেন চ্যাপ্টারের উপদেষ্টা লীনা হককে মামলা থেকে অব্যহতির সুপারিশ করেছেন তদন্ত কর্মকর্তা।

তাসলিমা নাসরিনসহ তিন আসামি পলাতক থাকায় তাদের বিরুদ্ধে ইন্টারপোলের মাধ্যমে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারির আবেদন করা হয়েছে। মামলার অভিযোগে জানা যায়, উইমেন চ্যাপ্টারের মাধ্যমে সুপ্রীতি ধর, সুচিস্মিতা সিমন্তি ও লীনা হকরা প্রায়ই ইসলাম ধর্মের বিরুদ্ধে বিদ্বেষমূলক লেখা প্রকাশ করেন। তারই ধারাবাহিকতায় ২০১৮ সালের ১৭ এপ্রিল বিকেলে তসলিমা নাসরিনের ‘ধর্ষকের কাছে নারীর কোনো ধর্ম নেই’ শীর্ষক একটি নিবন্ধ প্রকাশিত হয়। তাতে উল্লেখ করা হয়, ‘পয়গম্বরও আরব দেশে ইহুদি পুরুষদের মেরে ওদের মেয়েদের নিজের সঙ্গীদের মধ্যে বিতরণ করেছিলেন।‘ লেখিকার এই বক্তব্যে বাদীর দ্বীনি অনুভূতিতে আঘাত লাগে বলে মামলায় উল্লেখ করা হয়।

জেটি//এমএইচ

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More