জলবায়ু ইস্যুতে একমত হয়েছে চীন-আমেরিকা

0 11

||বিদেশ-বিভূঁই প্রতিবেদন||

“একসাথে কাজ করার ব্যাপারে দৃঢ় প্রতিশ্রুতিবদ্ধ” চীন ও যুক্তরাষ্ট্র, স্কটল্যান্ডের গ্লাসগোতে কপ-২৬ জলবায়ু সম্মেলনে এমন আচমকা ঘোষণা আসে। বিশ্বে সবচেয়ে বেশি কার্বন ডাই অক্সাইড নির্গমন করা এই দুই দেশ যৌথভাবে কাজ করার প্রতিশ্রুতি নিয়ে সহযোগিতা বাড়ানোর বিষয়ে সম্মত হয়েছে।

উভয় পক্ষই ২০১৫ সালের প্যারিস চুক্তিতে নির্ধারিত ১.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রায় সীমাবদ্ধ থাকার লক্ষ্য অর্জনের ক্ষেত্রে চোখে পড়ার মতো ব্যবধানগুলো ধাপে ধাপে কমিয়ে আনতে প্রচেষ্টা চালিয়ে যাওয়ার আহ্বান জানিয়েছে।

এই ঘোষণাকে স্বাগত জানিয়েছেন পরিবেশবাদী আন্দোলনকর্মী ও রাজনীতিবিদরা। জাতিসংঘ ও ইউরোপীয় ইউনিয়ন বিষয়িটি বেশ জরুরি ও উৎসহজনক পদক্ষেপ হিসেবে আখ্যা দিয়েছে। এই দুই দেশকে বিভিন্ন বিষয়ে বৈশ্বিক প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে দেখা হয়। তবে উভয় পক্ষের প্রেসিডেন্ট সামনের সপ্তাহে একটি ভার্চুয়াল বৈঠক করবেন বলে আশা করা হচ্ছে।

চীনের শীর্ষ জলবায়ু আলোচক শি জেনহুয়া বলেছেন, জলবায়ু পরিবর্তনের বিষয়ে “চীন ও যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে যতোটা না মতপার্থক্য আছে, তার চাইতে বেশি চুক্তি রয়েছে”।

ওই চুক্তিতে স্বাক্ষর করেছে আরো প্রায় ১০০টি দেশ। চীন এর পরিবর্তে মিথেনের নির্গমন নিয়ন্ত্রণে একটি “জাতীয় পরিকল্পনা” তৈরি করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে।

প্রেশার গ্রুপ ডব্লিউ ডব্লিউ এফ-এর মার্কিন জলবায়ু নীতি অ্যাকশনের পরিচালক জেনেভিভ মেরিকেল বলেন, আগামী নয় বছরের মধ্যে যদি দুটি দেশ প্রয়োজনীয় হারে কার্বন ডাই অক্সাইড নির্গমন হ্রাস করতে পারে তবে এখন থেকেই কী করা প্রয়োজন সে সম্পর্কেও স্পষ্ট ধারণা রাখতে হবে। কেননা তাপমাত্রা ১.৫ ডিগ্রী সেলসিয়াসে সীমাবদ্ধ রাখতে গেলে পুরো অর্থনীতির ওপর প্রভাব পড়বে।”

জাতিসংঘ মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেস বলেছেন, এই ঘোষণাটি “সঠিক দিকে একটি গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ”।

এসএ//আরজে

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More