জমি নিয়ে সংঘর্ষে বাবা-ছেলেসহ ৮ জন আহত

0 41

||উপজেলা প্রতিবেদক, ধুনট (বগুড়া)||
আদালতের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে বগুড়ার ধুনট উপজেলায় জমি দখল নেওয়াকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষে বাবা ও ছেলেসহ উভয় পক্ষের ৮ জন আহত হয়েছেন। শুক্রবার সকালে উপজেলার মথুরাপুর ইউনিয়নের কাশিয়াহটা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

আহতরা হলেন কাশিয়াহাটা গ্রামের জমসের আলীর ছেলে সিরাজুুল হক (৭০) ও তার ছেলে তোফায়েল হোসেন (৩৮), হযরত আলীর ছেলে মোতালেব (৫০), মওলা বক্সের স্ত্রী ফিরোজা খাতুন (৫০), নক্কার আলীর ছেলে জাহাঙ্গীর আলম (৫৫), আছাব আলীর ছেলে মওলা বক্স (৬০), মোখলেছ আলীর স্ত্রী নাজমা খাতুন (৪৫), মোতালেবের স্ত্রী ডলি খাতুন (৪৭)।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, উপজেলা মথুরাপুর ইউনিয়নের কাশিয়াহাটা গ্রামের জামশেদ আলী সরকারের ছেলে গোলাম মুর্তুজার সাথে একই এলাকার আসাব আলী ছেলে মওলা বক্স ও হযরত আলী ছেলে মোখলেছার রহমান ও মোত্তালেব হোসেনের সাথে দীর্ঘদিন ধরে ৯৩ শতক জমি নিয়ে বিরোধ চলে আসছে। বিষয়টি নিয়ে স্থানীয়ভাবে বেশ কয়েকটি শালিস বৈঠক হলেও কোনো সমাধান হয় নি।

এ অবস্থায় শুক্রবার সকাল ৯টার দিকে মওলা বক্স তার লোকজন নিয়ে বিবাদমান জমিতে হালচাষ করতে যান। খবর পেয়ে গোলাম মুর্তুজা তাদের বাঁধা দিতে গেলে উভয়পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ শুরু হয়। সংঘর্ষে উভয়পক্ষের ৮জন আহত হয়। আহতদের উদ্ধার করে প্রথমে ধুনট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়। সেখানে অবস্থার অবণতি হওয়ায় তাদের উন্নত চিকিৎসার জন্য বগুড়ার শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়েছে।

এ ঘটনায় স্কুল শিক্ষক গোলাম মুর্তুজা জানান, ১৯৩৯ সাল থেকে প্রায় ৮০ বছর হলো তারা ওই জমি ভোগ দখল করে আসছেন। জমির সমস্ত কাগজপত্র তাদের নামে। প্রতিপক্ষের লোকজন আদালতের জারিকৃত স্থায়ী নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে তাদের জমিতে হালচাষ করতে যায়। এসময় নিষেধ করায় তারা আমাদের ওপর হামলা চালিয়েছে।

অবশ্য প্রতিপক্ষ মওলা বক্সের দাবি, পৈতৃক সূত্রে পাওয়া জমিতে তারা চাষাবাদ করার জন্য গিয়েছিলেন। এসময় গোলাম মুর্তুজা লোকজন নিয়ে এসে অতর্কিতভাবে তাদের ওপর হামলা চালিয়েছে।

ধুনট থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) কৃপা সিন্ধু বালা জানান, সংঘর্ষে আহতদের চিকিৎসার খোঁজ-খবর নেয়া হয়েছে। এ ঘটনায় অভিযোগ পেলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

উপজেলা//এমএইচ

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More