করোনার ভারতীয় ভেরিয়েন্ট ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা কেরানীগঞ্জে

0 54

।। জেলা প্রতিবেদক কেরানীগঞ্জ ।।

দেশে সীমান্তবর্তী ২৯ জেলায় করোনা সংক্রমণ বাড়ছে। এই জেলাগুলোতে করোনার ভয়ঙ্কর ভারতীয় ভেরিয়েন্ট ছড়িয়ে পড়ছে। ঢাকার নবাবগঞ্জ উপজেলায় চাঁপাইনবাবগঞ্জ থেকে আগত কয়েকজন শ্রমিকের শরীরে দেখা দিয়েছে করোনার ভারতীয় ভেরিয়েন্টের উপস্থিতি। ঢাকার কেরানীগঞ্জে ভাসমান জনগোষ্ঠি বেশি হওয়ায় কেরানীগঞ্জেও রয়েছে ভারতীয় ভেরিয়েন্ট ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা। ঢাকার সবচেয়ে কাছের উপজেলা হওয়াতে দেশের বিভিন্ন জেলা হতে আগত অনেক ভাসমান জনসাধারণের বসবাস রয়েছে কেরানীগঞ্জে। কেরানীগঞ্জের জনসংখ্যা প্রায় ২২ লাখের মতো। এর মধ্যে কেরানীগঞ্জের আগানগর গার্মেন্ট পল্লী এলাকায় রয়েছে দেশের বিভিন্ন জেলার প্রায় ৭ থেকে ৮ লাখের মতো শ্রমিক। এছাড়াও কেরানীগঞ্জে অন্যান্য ইউনিয়নগুলোতেও বিভিন্ন কল-কারখানা ও উন্নয়ন প্রকল্পে কাজ করছে দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে আগত লোকজন। রোজার ঈদের দীর্ঘ ছুটির পরে কেরানীগঞ্জ গার্মেন্ট পল্লী ও জিনজিরা তাওয়াপট্টির কারখানাগুলো খুলতে শুরু করেছে। চালু হয়েছে বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্প ও কল-কারখানার কাজও। দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে আসতে শুরু করেছে শ্রমিকরা। সীমান্তবর্তী জেলাগুলোতে ভারতীয় ধরন ছড়িয়ে পড়ার পরে গত ১০ দিনে সেখান থেকে কোনো শ্রমিক কেরানীগঞ্জে এসেছে কিনা, আসলেও কি পরিমাণ এসেছে, কে কোথায় উঠেছে তার কোনো সঠিক হিসাব নেই।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন ব্যবসায়ীর সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, অন্যান্য অঞ্চলের চেয়ে কম সুবিধায় উত্তরবঙ্গের শ্রমিকদের কাজ করানো যায়। তাই গার্মেন্ট পল্লীতে উত্তরবঙ্গের চাপাইনবাবগঞ্জ, নাটোর, রাজশাহী, রংপুর, কুড়িগ্রাম, চিতলমারী, পঞ্চগড়, দিনাজপুরের শ্রমিক বেশি আছে। এছাড়াও অন্যান্য জেলার লোকজনও আছে। ঈদের দীর্ঘদিন বন্ধ থাকার পরে কোরবানী ঈদকে সামনে রেখে গত সপ্তাহ থেকে দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে শ্রমিকেরা আসতে শুরু করেছে। তবে এদের কারোই করোনা টেস্ট করানো হয়নি। কেউ ভারতীয় ভেরিয়েন্ট নিয়ে এখানে এসেছে কিনা তাও খুঁজে পাওয়ারও কোনো উপায় নেই।

এসএফ

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More